ই-অগ্রণী দর্পণ

অগ্রণী ব্যাংকের নিজস্ব প্রকাশনা

এমডি এবং সিইও হিসেবে পুনরায় নিয়োগ পাওয়ায় মোহম্মদ শামস্-উল ইসলামকে প্রাণঢালা সংবর্ধনা

দেশসেরা ব্যাংকার ও বঙ্গবন্ধু কর্নারের উদ্ভাবক মোহম্মদ শামস্-উল ইসলামকে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড এর এমডি এবং সিইও হিসেবে ৩ বছরের জন্য পুনরায় নিয়োগ দেয়ায় ব্যাংকের সর্বস্তরের নির্বাহী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পক্ষ থেকে গত ১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে ব্যাংক ভবনের ছাদে বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। অগ্রণী ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইউসুফ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. জায়েদ বখ্‌ত। বক্তব্য রাখেন ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো.আনিসুর রহমান, মহাব্যবস্থাপক মো. আবদুস সালাম মোল্লা, মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ উল্ল্যা, আবিদ হোসেন, সাবেক উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও মুক্তিযোদ্ধা এনামুল হক, সাবেক মহাব্যবস্থাপক মো. খালেকুজ্জামান, এক্সিকিউটিভ ফোরামের সভাপতি ফজলুল হক, সাধারণ সম্পাদক এম. এ. মজিদ তালুকদার, অফিসার সমিতির সভাপতি নাজমুল হুদা রবিন, সিবিএ-র সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদিন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহ্বায়ক মামুনুর রশীদ, সদস্য সচিব মোস্তফা কামাল। পুরো সভাটি সঞ্চালনা করেন অফিসার সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. মোবারক হোসেন এবং অভিনন্দন পত্র পাঠ করেন সিবিএ সভাপতি খন্দকার নজরুল ইসলাম ।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ড. জায়েদ বখ্‌ত, মোহম্মদ শামস্-উল ইসলামকে পুনরায় নিয়োগ প্রদান করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, অর্থ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংকের সকল পর্যায়ের নিয়োজিত নির্বাহী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি এমডি সাহেবের চারটি গুণ তুলে ধরেন। গুণগুলো হচ্ছে (১) দূরদৃষ্টি সম্পন্ন মানুষ (২) পরিশ্রমী (৩) Excellent Communication Skill এবং (৪)Pragmatism and Prudence. এই চারটি গুণাবলীর ব্যাখ্যায় চেয়ারম্যান মহোদয় ব্যাংকের বিভিন্ন সূচকের অগ্রগতিতে এমডি এবং সিইও এর অবদান স্বীকার করে বলেন  No Cost, Low Cost Deposit, Recovery Drive এবং ব্যাংকের রপ্তানি নীতি সহজিকরণের ফলে অগ্রণী ব্যাংক দেশের একটা সম্মানজনক ব্যাংকে রূপান্তরিত হয়েছে। অর্থমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে তিনি বলেন অগ্রণী ব্যাংক আজ ভাল করছে, সবার চাইতে ভাল করছে।

সংবর্ধনা সভায় ভাষণরত দেশসেরা ব্যাংকার মোহম্মদ শামস্‌-উল ইসলাম

মোহম্মদ শামস্-উল ইসলাম তাঁর বক্তব্যের শুরুতে বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধের মহান শহীদ এবং ব্যাংকের প্রয়াত সকলকে স্মরণ করেন। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, অর্থ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক সহ অগ্রণী ব্যাংকের নির্বাহী, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিন বছর কাজ করার পর পুনরায় এমডি এবং সিইও হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্তিকে অগ্রণী ব্যাংকের তের হাজার কর্মীর প্রাপ্তি আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন আমরা অঙ্গীকারাবদ্ধ। আমরা কমিটেড। তিন বছর আগে যে যুদ্ধ শুরু হয়েছে তা এখনো শেষ হয় নাই। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে রোল মডেল মনে করে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন করেছেন। তিনি গঠনমূলক সমালোচনাকে স্বাগত জানিয়ে পরচর্চা না করে, বিভ্রান্ত তথ্য দিয়ে ফেইসবুকে না লিখে সঠিক তথ্য দেয়ার আহ্বান জানান। ফেইসবুকে বিভ্রান্তিমূলক লেখাকে নজরদারিতে আনা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন আপনারা চেইনে থাকেন কেননা We all are in a chain.

<

মোহম্মদ শামস্-উল ইসলাম আগামী দিনে ব্যাংকের অনেকগুলো কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরেন। তিনি তরুণ কর্মকর্তাদের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হবে মর্মে ঘোষনা দেন। টাউন হল মিটিং এর মত একটি নতুন ধারনা নিয়ে তরুণ কর্মকর্তাদের সাথে মত বিনিময় করবেন বলে উল্লেখ করেন। টাউন হল মিটিং হবে বিকেল ৩টা থেকে ৭টা পর্যন্ত যেখানে সকল শাখার তরুণ কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন। লাঞ্চ ও ডিনারের সময় পরিহার করাতে ব্যাংকের খরচ সাশ্রয় করা হবে। এছাড়া শুধু ম্যানেজার কনফারেন্স করা হলে অন্যান্য অফিসার/কর্মচারীদের অ্যাড্রেস করা হয় না। এতে তরুণ জেনারেশন কি ভাবছেন তা যেমন এমডি জানতে পারেননা, তেমনি তরুণরাও জানতে পারেন না যে, এমডি সাহেব কিভাবে বা কী নীতিতে ব্যাংক চালাতে চান। এজন্য তিনি সার্কেল ও অঞ্চলসমূহে ম্যানেজার্স কনফারেন্স এর বদলে টাউন হল মিটিং করবেন বলে জানান । সবার উদ্দেশ্যে বেশি কাজ করার বিষয়টি উল্লেখ করে নো কস্ট, লো কস্ট ডিপোজিট আনয়নে, লোন রিকভারিতে নেটওয়ার্ক কাজে লাগানোর জন্য তিনি আহ্বান করেন। অগ্রণী ব্যাংকে প্রায় ১০,০০০ মামলার কথা উল্লেখ করে মামলা কমানোর প্রতি সবচাইতে বেশি গুরুত্ব আরোপ করেন। অগ্রণী ব্যাংকের পেন্ডিং মামলা ব্যাংকিং সেক্টরে একক ব্যাংক হিসেবে সর্বোচ্চ বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, আমরা ভাল কাজে সর্বোচ্চ হতে চাই, পেন্ডিং মামলার মত খারাপ দিকে সর্বোচ্চ হবো কেন? আদালতের বাইরে যে বেশি মামলা কমাবে তাকে পুরস্কৃত করা হবে। বিশেষ করে এ বিষয়ে ব্যাংকে নিয়োগকৃত তরুণ আইন কর্মকর্তাদের আরো বেশি দায়িত্ব নিয়ে কাজ করার জন্য তিনি গুরুত্ব আরোপ করেন।

আগামীতে সিঙ্গাপুরের ডিবিএস ব্যাংকের মতো ফিজিক্যাল শাখা কমিয়ে টেকনোলজি সমৃদ্ধ শাখা বাড়ানোর বিষয়ে উল্লেখ করে তিনি অগ্রণী ব্যাংককে রূপান্তর করার রূপকল্পের কথা বলেন। পদ্মা সেতুতে অগ্রণী ব্যাংকের অবদান উল্লেখ করে জাতীয় অর্থনীতিতে আমাদের যাতে ভূমিকা বা কমান্ড থাকে সে লক্ষ্যেও সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

আমাদের সিএল ২৯% থেকে এখন ১৪-১৫% এ নেমেছে যা আগামীতে সিঙ্গেল ডিজিটে নিয়ে আসা হবে। সে লক্ষ্যে আগামী তিন বছরে বিশেষ অগ্রগতির কর্মসূচী দেওয়া হবে। পরিশেষে, তিনি সবাইকে এক পতাকা তলে এসে অগ্রণী ব্যাংককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে এবং সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে তাঁর বক্তব্য সমাপ্ত করেন ।

প্রতিবেদক- এ এইচ এম জহিরুল ইসলাম

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

কপিরাইট © অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড কর্তৃক সংরক্ষিত | Newsphere by AF themes.